কেশর এর উপকারিতা | কেশর এর গুনাগুণ

কেশর এর উপকারিতা ঠিক কতটা আমরা প্রায় সবাই জানি আবার অনেকে জানি‌ না।কেশর এর উপকারিতা বলে শেষ হবার নয়।কেশর এর উপকারিতা ও কেশর এর গুনাগুণ সম্পর্কে জানবো আমরা আজকের আর্টিকেলটি তে।

চলুন শুরু করা যাক কেশর এর উপকারিতা ও কেশর এর গুনাগুণ সম্পর্কিত আলোচনা। 

সূচিপত্র: কেশর এর উপকারিতা|কেশর এর গুনাগুণ

কেশর এর উপকারিতা

ডায়াবেটিসের সমস্যা নিয়ে আর ভাবার কিছু নেই, যদি সাথে রাখেন কেশরকে। কারণ কেশরে আছে যথেষ্ট পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ। যেটা খুব সুন্দর ভাবে ব্লাড সুগার লেভেলকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য কেশর এর উপকারিতা অনেক,এক কথায় এটা খুবই ভালো ওষুধ।

কেশরে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি ৬। যেটা খুব কম ফল বা সবজিতেই পাওয়া যায়। এই ভিটামিন শরীরের নার্ভ সিস্টেমকে ঠিক রাখে। শুধু নার্ভ সিস্টেম কেন, শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়। তার ফলে যেকোনো রোগ থেকেই বাঁচতে সাহায্য করে তাহলে অবশ্যই বলতে হবে কেশর এর উপকারিতা শেষ নেই।

কেশরে আছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম। যা ব্লাড প্রেশারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তার ফলে হার্টও থাকে সুস্থ। উচ্চ রক্তচাপ হার্টের জন্য একদম ভালো নয়। তাই হার্টকে সুস্থ রাখতে, নিজের ব্লাড প্রেশারকে নিয়ন্ত্রণে রাখুন কেশরের সাহায্যে। এখানে ও কেশর এর উপকারিতা অনেক।

ত্বক সুন্দর রাখতে কেশর এর উপকারিতা যে কতটা সেটা অনেকেই জানেন। যদি সত্যি সুন্দর, স্মুদ ও রেডিয়েন্ট স্কিন চান, তাহলে কেশরের থেকে ভালো উপাদান বোধহয় আর কিছু হতে পারে না।

কেশর এর সঠিক ব্যবহার

কেশর অন্তত তিনঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে।বেশী সময় ভিজিয়ে রাখতে পারলে আরও ভালো। এবার ঐ পানি দিয়ে মুখে ম্যাসাজ করুন ১০ মিনিট। তারপর এটা মুখে আর কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন। এটা সপ্তাহে দু থেকে তিনদিন করতে পারলে, নিজের স্কিন টোনের পরিবর্তন নিজেই বুঝতে পারবেন।

তাহলে দেখলেন তো কেশরের গুণ, নিজেকে হেলদি রাখতে এবার একটু খরচা করেই ফেলুন। তবে রোজ খাওয়ার দরকার নেই। সপ্তাহে দু থেকে তিনদিন খেলেই যথেষ্ট। আপনি থাকবেন ফিট এবং সুন্দর।

কেশর এর দাম

কেশর অনেক বছর ধরে মশলা হিসেবে সারা পৃথিবীতে সমাদৃত।তিন হাজার বছরের আগে থেকে রান্না ঘরে মশলা হিসেবে কেশর ব্যবহার হয়ে আসছে।বিশ্বে যত মশলা উৎপন্ন হয় কেশর কে সব মশলার রাজা বলা হয়।কি রঙে, কি গন্ধে কি স্বাদে কেশরের তুলনীয় কোন মশলাই নেই। খাঁটি কেশর ৬ লাখ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে এমন ও খবর শুনা যায়।

কেশর বিশ্বের অল্প কিছু দেশে উৎপাদন হয়।তবে মূলত চারটি দেশের কেশর পৃথিবীতে বিখ্যাত:ভারত,ইটালি,স্পেন এবং ইরান। সারা পৃথিবীতে যত কেশর উৎপাদন হয় তার মধ্যে নব্বই শতাংশ কেশরই আসে ইরান থেকে। কেশর সব থেকে কম উৎপাদন হয় ভারতে।

পুংকেশরগুলো বের করে তা এয়ারটাইট পাত্রে রাখা হয়। পাইকারি হিসাবে প্রতি পাউন্ড (৪৫০ গ্রাম) ৫০০ থেকে ৫ হাজার ডলারে বিক্রি হয়। এক পাউন্ডে ৭০ হাজার থেকে ২ লাখ কেশর থাকতে পারে। পুরো কাজটি কায়িক পরিশ্রমে শেষ করতে হয়। অটোমেশনের কোন সুযোগ নেই। যে কারণে জাফরানের দাম বেশি। সাধারণত কেশর এর দাম সব দেশই বেশি হয়ে থাকে।

কেশর এর গুনাগুণ

হজমের সমস্যা হলে কেশরকে সঙ্গে রাখুন। রোজ একটু কেশরই খাবার হজম হতে সাহায্য করবে। তার ফলে অম্বল, গ্যাস, আলসার, কনস্টিপেশন এসব সমস্যা থেকেও আপনাকে অনেকটা দূরে রাখতে সক্ষম কেশর।

রান্নার স্বাদ বাড়াতে ব্যবহার করা হয় কেশর।দুধের সঙ্গে কেশর মিশিয়ে কপালে লাগালে জ্বর, ঠান্ডা লাগা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।সর্দি-কাশি, ঠান্ডা লাগা থেকে মুক্তি পেতে কেশরের উপকারিতা অপরিসীম।

অসময়ে চুলে পড়ে যাওয়া বা অ্যালোপেসিয়া থেকে মুক্তির জন্যে কেশরের উপকারিতা অপরিসীম। এক গ্লাস দুধ ও যষ্টিমধুর সঙ্গে কেশর মিশিয়ে খেলে, খুব তাড়াতাড়িই চুল পড়া বন্ধ হয়।

এক গ্লাস দুধে এক চিমটে কেশর ফেলে দিয়ে খেলে বয়ঃসন্ধির সময় মেয়েদের না না সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়।

কেশরে একধরনের জিনিষ আছে, নাম ক্রোসিন, বার্ধ্যকজনিত নানা সমস্যায় খুব উপকারী। জাপানে কেশর ব্যবহার করা হয় পার্কিনসন্স, স্মৃতিশক্তি হ্রাস হওয়ার মতো রোগ নিয়ন্ত্রণ করতে।

ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে কেশর।যেটা সত্যি অনেক কিছু।কেশর এর গুনাগুণ ঠিক কতটা আশা করি এই কথা টা জানার পড় বুঝতেই পারছেন।

ঘামের গন্ধ দূর করতে, অ্যাসিডিটি থেকে বাঁচতে এবং মহিলাদের মাসিকজনিত সমস্যায় মারাত্মক উপকারী এই কেশর।কেশর মূলত বিশ্বের সবচেয়ে দামি মশলার অন্যতম। এইমুহূর্তে ইরান, গ্রিস, মরোক্ক, স্পেন, ভারতের কাশ্মীর এবং ইতালিতে উৎপন্ন করা হয় কেশর।

আপনাকে সুন্দর করে তুলতে যে জাস্ট একটু কেশরই যথেষ্ট, এটা তো আমরা সবাই জানি। কিন্তু শুধু সুন্দর থাকতে নয়, কেশরের রয়েছে আরও হাজারো গুণ আমাদের ভালো রাখতে। সেটা অবশ্য এটার দাম দেখেই বোঝা যায়। এতে রয়েছে ভরপুর নিউট্রিইয়েন্টস ও ওষুধের মত গুণ। যেটা শারীরিক বিভিন্ন সমস্যার ক্ষেত্রে ওষুধের মত কাজ করে।

কেশর নিয়ে শেষ কথা

কেশর এর উপকারিতা আশা করি আপনারা সবাই ভালো করে জানতে পেরেছেন।কেশর এর গুনাগুণ সম্পর্কে ও বুঝতে পারছেন।কেশর এর উপকারিতা যেমন ঠিক তেমনি কেশর এর দাম অনেক বেশি।কেশর এর দামের জন্য অনেক আছেন যারা কেশর এর উপকারিতা জেনে ও ব্যবহার করতে পারেন না। কিন্তু এতে কিছু করার নেই কেশর তৈরি করা ও অনেক কষ্ট সাধ্য।তো আজকের মতো এতোটুকুই আবার আসব নতুন কিছু নিয়ে ততদিন পর্যন্ত ভালো থাকবেন ধন্যবাদ।16056

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url